"কালুরঘাটে নতুন সেতু নির্মাণে নতুন সরকারের শুরুতে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতে হবে।"

Bortoman Protidin

৪ দিন আগে রবিবার, জুলাই ২১, ২০২৪


#
চট্টগ্রামের কালুরঘাটে নতুন সেতু নির্মাণ কাজ সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পরপরই নিতে হবে । গতকাল ফেরীতে আবহাওয়ার কারণে কালুরঘাটে ফেরী বন্ধের কারণে হাজার হাজার মানুষকে যে অবর্ণনীয় কষ্ট স্বীকার করতে গয়েছে তা থেকে প্রমাণ হয় যে এখানে নতুন সেতু দ্রুত নির্মাণ করতে  হবে। আর এটা শুধু বোয়ালখালীর নয় সারা চট্টগ্রামবাসীর দাবী।

আজ চট্গ্রাম নাগকিক ফোরামের উদ্যোগে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সুলতান আহমেদ হলে কালুরঘাট সেতু নিয়ে এক গোল টেবিল বৈঠকে উপরোক্ত আহ্বান জানানো হয়।
এতে সভাপতিত্ব করেন ফোরামের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার মনোয়ার হোসেন।

অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন ফোরামের মহাসচিব মোঃ কামাল উদ্দিন। সভাপতি ব্যারিষ্টার মনোয়ার হোসেন,সঞ্চালনায় মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন।
বক্ত্যব্য রাখেন বিশিষ্ট প্রকৌশলী সুভাষ বডুয়া, সাবেক এমপি ও চাকসু ভিপি মাজহারুল হক শাহ চৌধুরী, সাংবাদিক জসিম উদ্দিন সবুজ, সাংবাদিক মোঃ মুজাহিদুল ইসলাম,লেখক ও সাংবাদিক মোহাম্মদ কামরুল ইসলাম,যুবলীগ নেতা সৈয়দ মোহাম্মদ ইসমাইল বিপ্লব, আবু তাহের চৌধুরী,সাংবাদিক স.ম.জিয়া, মোঃ আকতার, সাংবাদিক তাসলিম হাসান হৃদয়,সাংবাদিক ইমতিয়াজ শাওন, সাংবাদিক ইমতিয়াজ শাওন, কক্সবাজারের জাতীয় পার্টির নেতা 

অধ্যাপক এমকেএম নুরুল বশর ভুঁইয়া, কক্সবাজারের আওযামী লীগ নেতা ম্ভুনাথ চক্রর্বতী, পারভীন আকতার প্রমুখ। 
ব্যারিস্টার মনোয়ার বলেন, কালুরঘাট সেতুটি নতুন করে নির্মাণের জন্য ১৯৯১ সাল থেকেই তিনি দাবী উত্থাপন করেছেন , কিন্তু বিষয়টাকে তখন গুরুত্ব দেওয়া হয়নি । এক পর্যায়ে গত আট বছর যাবত এটি একটি জনপ্রিয় দাবী হিসেবে সামনে এসেছে। কিন্তু এটা হওয়ার ব্যাপারে দেখা যাচ্ছে রেল মন্ত্রণালয়ের ও রেলওয়ে দপ্তরের অনেক অবহেলা ও তালবাহান রয়েছে। 
পুরাতন সেতুটির সাম্প্রতিক মেরামতের বিষয়টি সেটাই প্রমাণ করে, কারণ এসব বিষয় সমাধান করা উচিত ছিল কক্সবাজার পর্যন্ত ট্রেন লাইনের কাজ চলাকালীন।
তিনি আরো বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ বিষয়ে ঘোষণা এবং যথেষ্ট আন্তরিকতা থাকা সত্ত্বেও আমরা সেটাকে যথাযথ কাজে লাগাতে পারিনি , এজন্য দায়ী রাজনীতিবিদ ও  সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
তিনি চট্টগ্রামের সমস্ত রাজনীতিকদের  যার যার জায়গা থেকে প্রচেষ্টা চালানোর জন্য অনুরোধ জানান।

প্রকৌশলী সুভাষ বড়ুয়া বলেন, আমাদের চট্টগ্রামে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অনেক বড়  কাজ করিয়েছেন।  কিন্তু কোথাও না কোথাও দেখা গেছে যথাযথ পরিকল্পনার অভাবের অভাব রয়েছে। এখন থেকে পরিকল্পনা নিয়েই সব কাজ করতে হবে এবং সমন্বয়ের মাধ্যমে এগোতে হবে। 

অন্যান্য বক্তারা বলেন যে কালুরঘাট এর নতুন সেতু নির্মাণ দাবি আপামর চট্রগ্রামবাসীর  সবার। আজকের গোলটেবিল বৈঠকে আছেন কক্সবাজার,  পটিয়া, সাতকানিয়া, হাটহাজারী বিভিন্ন স্থান থেকে এসেছেন ও বক্তব্য রেখেছেন এবং সবাই বলেছেন এটা কোন আঞ্চলিক সমস্যা নয় বরং চট্টগ্রামের॥ এটাতে কোন রাজনীতি নেই , এটা কোন সরকারের বিরোধিতা নয় বরং এটা হচ্ছে জনপ্রতিনিধিদের উৎসাহিত করা যাতে তাঁরা কার্যকর ভূমিকা নিতে পারেন।
global fast coder
ইউটিউব সাবস্ক্রাইব করুন  
Link copied