বিশ্ব

টয়লেট করলেই মল হয়ে যাবে ছাই!

বর্তমান প্রতিদিন bartoman pratidin
প্রকাশিত : সোমবার, ২০২২ সেপ্টেম্বর ১২, ০৫:৪৪ অপরাহ্ন

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক:

পরিবেশ দূষণ ও পানির অপচয় রোধে বিশেষ ধরনের প্রযুক্তিসম্পন্ন ‘পানিবিহীন টয়লেট’(ওয়াটারলেস টয়লেট) ইলেক্ট্রনিক্স পণ্য উৎপাদনকারী বহুজাতিক কোম্পানি স্যামসাং প্রস্তুত করেছে। এই প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করেছে মার্কিন ধনকুবের বিল গেটস ও তার সাবেক স্ত্রী মেলিন্ডা গেটস গঠিত অলাভজনক সংস্থা বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন।

পানির কোনো ব্যবহার নেই ওয়াটারলেস টয়লেটে। এটির সাথে সংযুক্ত উচ্চমাত্রার তাপ প্রযুক্তি সেটিকে প্রথমে শুকিয়ে এবং তারপর পুড়িয়ে ছাই করে ফেলে। তরল বর্জ্য বা মূত্রকে বিশুদ্ধ ও পুনর্ব্যবহারযোগ্য পানিতে রূপান্তরের প্রক্রিয়াও আছে টয়লেটটিতে। মলকে পুড়িয়ে ছাই করে ফেলা এবং মূত্রকে বিশুদ্ধ পানিতে রূপান্তরের প্রক্রিয়াটি ঘটে স্বল্প সময়ের মধ্যে।

এই ওয়াটারলেস টয়লেট প্রকল্পের কাজ ২০১১ সালে শুরু হয়েছিল। সেটি ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে।

বিল অ্যান্ড মেলিন্ডা গেটস ফাউন্ডেশন থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এই প্রকল্প সম্পর্কে বলা হয়, ‘১৫৯৬ সালে ব্রিটিশ প্রযুক্তিবিদ ও আবিষ্কারক স্যার জন হ্যারিংটন ফ্ল্যাশ টয়লেট আবিষ্কার করেছিলেন। তার পর থেকে গত প্রায় সাড়ে ৪০০ বছরে টয়লেটের কোনো পরিবর্তন হয়নি।’

‘এই উদ্যোগের মূল লক্ষ্য হলো মনুষ্যবর্জ্য প্রকৃতিতে ছড়িয়ে পড়া ও তা সৃষ্ট রোগ-জীবাণুর আক্রমণ থেকে জনস্বাস্থ্য রক্ষা করা। যেসব দেশে দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের সংখ্যা বেশি, সেসব অঞ্চলে পানিবাহিত রোগবালাই রোধে এই টয়লেট খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম।’

‘তাছাড়া বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে সুপেয় পানির সংকট চলছে, আবার ফ্ল্যাশ টয়লেটের কারণে বিপুল পরিমাণ পানি অপচয়ও হচ্ছে। পানির অপচয় রোধেও এটি উপযোগী।’

জাতিসংঘের শিশু অধিকার ও জনস্বাস্থ্য বিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফের তথ্য অনুসারে, বর্তমানে বিশ্বজুড়ে ৩৬০ কোটি মানুষ স্বাস্থ্যকর পয়োনিষ্কাশন বা টয়লেট সুবিধাবঞ্চিত। উন্মুক্ত পরিবেশে মলমূত্র ত্যাগের কারণে ডায়রিয়া ও অন্যান্য পানিবাহিত রোগ ও বিশুদ্ধ পানির অভাবে প্রতি বছর বিশ্বজুড়ে মারা যায় অন্তত ৫ লাখ শিশু।

সূত্র : এনডিটিভি

আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন


মন্তব্য করুন

Video