বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল-হাইটেক পার্কে বিনিয়োগ করুন : প্রধানমন্ত্রী

৪ অক্টোবার, ২০১৯ ০৮:১১ pm

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক:

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশের বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং হাইটেক পার্কগুলোতে বিনিয়োগ করার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বেশ কয়েকটি হাইটেক পার্ক প্রযুক্তি এবং উদ্ভাবনী উদ্যোগের জন্যও প্রস্তুত রয়েছে। মোংলা, ভেড়ামারা ও মিরসরাইয়ে ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের জন্য তিনটি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রস্তুত করেছে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের এই তিনটি ভারতীয় অর্থনৈতিক অঞ্চলে ভারতীয় বিনিয়োগকারীদের পর্যাপ্ত বিনিয়োগ আমাদের রফতানিযোগ্য খাতকে আরও প্রশস্ত করতে সহায়তা করবে।

তিনি জানান, ‘আমরা সারাদেশে ১০০ বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ বাস্তবায়ন করছি, যার মধ্যে প্রায় ১২টি তৈরি হয়ে গেছে, যেখানে চারটি অঞ্চল তিনটি দেশের জন্য বরাদ্দ দেয়া হয়েছে।’

শুক্রবার (৪ অক্টোবর) দেশটির আইসিটি মৌর্য হোটেলের কামাল মহল হলে ভারত-বাংলাদেশ বিজনেস ফোরামের (আইবিবিএফ) উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রদত্ত ভাষণে এ আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

বাংলাদেশ ও ভারত বর্তমানে সর্বকালের সেরা সম্পর্ক উপভোগ করছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উভয় দেশের ব্যবসায়ীদের নিজ নিজ জনগণের পারস্পরিক স্বার্থে কাজ করে এই অঞ্চলকে আরও সমৃদ্ধ করার আহ্বান জানান। ব্যবসায়ীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আমি আপনাদের সকলকে প্ল্যাটফর্মটির সর্বোত্তম ব্যবহার করতে এবং আমাদের জনগণের পারস্পরিক বৃহত্তর স্বার্থে উভয় দেশের অর্থনীতিতে অবদান রাখার অনুরোধ করছি এবং এর মাধ্যমে আমরা আমাদের দেশ ও এই অঞ্চলকে আরও সমৃদ্ধ এবং ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত করতে পারব।’

সংসদের প্রাসঙ্গিক আইন এবং দ্বিপক্ষীয় বিনিয়োগ চুক্তির দ্বারা বিদেশি বিনিয়োগকে সুরক্ষা প্রদান করা হয়েছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা জানায়, ‘আমরা একসঙ্গে আরও বাণিজ্য এবং বিনিয়োগ দেখতে চাই, যেখানে ভারতীয় বড় বিনিয়োগকারীরা বাংলাদেশে শিল্প স্থাপন করতে এবং আমাদের মধ্যে বিদ্যমান উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থার সুযোগ নিয়ে উত্তর ভারতের রাজ্যগুলো এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় দেশগুলোতে পণ্য রফতানি করতে পারে।’

প্রধানমন্ত্রী তার ভাষণে ভারতীয় ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দকে দেশে সবচেয়ে উদার বিনিয়োগ নীতি বলবৎ থাকার বিষয়টি পুণরায় স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, ‘দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বাংলাদেশে সবচেয়ে উদার বিনিয়োগের পরিবেশ বিরাজ করছে। যার মধ্যে রয়েছে-বৈদেশিক বিনিয়োগের আইনি সুরক্ষা, উদার রাজস্ব ব্যবস্থা, মেশিনপত্র আমদানির ক্ষেত্রে বিশেষ ছাড়, আনরেসট্রিকটেড এক্সিট পলিসি, সম্পূর্ণ বিনিয়োগ ও পুঁজি নিয়ে চলে যাবার সুবিধাসহ নানাবিধ সুযোগ সুবিধা।’

সন্ত্রাস এবং দুর্নীতির ক্ষেত্রে বাংলাদেশ সরকার ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি অনুসরণ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ ১৬২ মিলিয়ন জনসংখ্যা সমন্বিত একটি প্রগতিশীল ধর্ম নিরপেক্ষ রাষ্ট্র।’

তিনি বলেন, ‘বিগত বছরগুলোতে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণ ক্রমাগত বৃদ্ধি পেয়েছে। বাণিজ্যের ভারসাম্য যদিও এখন পর্যন্ত ভারতের পক্ষে রয়েছে। দুই দেশের মধ্যে বাণিজ্যের পরিমাণ প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার। ২০১৮ সালে, বাংলাদেশে ৮ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রফতানি করে ভারত এবং বাংলাদেশ এই দেশটির অষ্টম বৃহত্তম রফতানি গন্তব্য। ভারতে আমাদের রফতানিও গত বছরের প্রথমবারের মতো ১ বিলিয়ন ডলার ছাড়িয়েছে। সুতরাং, অগ্রগতি দৃশ্যমান, তবে, বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আমাদের সম্পর্ক আরও গভীর করার অনেক সুযোগ রয়েছে।’

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ভবিষ্যতে বাংলাদেশে পেঁয়াজসহ যেকোনো পণ্যের রফতানি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত আগে থেকে জানানোর জন্য অনুরোধ জানান। তিনি হিন্দিতে বলেন, ‘হঠাৎ করে আপনারা বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দিয়েছেন। আগে নোটিশ দিলে আমরা অন্য দেশ থেকে ব্যবস্থা করতে পারতাম। ভবিষ্যতে এমন কিছু করলে আগে জানালে ভালো হয়।’

শেখ হাসিনা তার বাসায় রাঁধুনিকে রান্নায় পেঁয়াজ ব্যবহার করতে নিষেধ করেছেন বলেও রসিকতা করে জানান।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন ভারতের শিল্প ও রেলমন্ত্রী পীযূষ গয়াল, বাংলাদেশের বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সী, ফেডাবেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই)-ও সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, ভারতের কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রির (সিআইআই)-র সভাপতি বিক্রম শ্রীকান্ত কিরলসকার, ফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি (এফআইসিসিআই)-র সভাপতি সন্দীপ সোমনি অ্যাসোসিয়েটেড চেম্বার্স অব কমার্স এন্ড ইন্ডাষ্ট্রি অব ইন্ডিয়া (এএসএসওসিএইচএএম)-এর সভাপতি বালকৃষ্ণ গোয়েঙ্কা।

অনুষ্ঠানে ‘প্রতিশ্রুতিশীল বাংলাদেশ’ শীর্ষক একটি ভিডিও উপস্থাপনা পরিবেশিত হয়।

শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন যে, বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সম্পর্ক এযাবতকালের মধ্যে সর্বোচ্চ উচ্চতায় পৌঁছেছে। মোদিজি (নরেন্দ্র মোদি) নিজে যাকে ‘সোনালী অধ্যায়’ বলে অভিহিত করেছেন। আমরা দৃঢ় আস্থাশীল যে, আগামী বছরগুলোতে আমরা এই সম্পর্ক আরও নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে পারব।

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় ভারত সরকার এবং দেশটির জনগণের কাছ থেকে যে সমর্থন ও সহযোগিতা বাংলাদেশ পেয়েছে প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সঙ্গে তা স্মরণ করেন।

তিনি বলেন, “ভূরাজনৈতিক রূপান্তর ও চ্যালেঞ্জ সত্ত্বেও ‘পারস্পরিক স্বার্থ’ ও ‘অভিন্ন ভবিষ্যৎ’ গড়ে তোলার নীতির ওপর ভিত্তি করে আমরা আমাদের সম্পর্ক জোরদার ও সংহত করতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের সহযোগিতা নিরাপত্তা, জ্বালানি, যোগাযোগ, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, প্রতিরক্ষা, সংস্কৃতি এবং জনগণের মধ্যে সম্পর্ক ও যোগাযোগসহ সকল ক্ষেত্রে সম্প্রসারিত হয়েছে।”

গত ১০ বছরে বাংলাদেশের ব্যাপক অর্থনৈতিক অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা গত এক দশকে উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক উন্নয়নে সক্ষম হয়েছি, যা উন্নয়নের মডেল হিসেবে স্বীকৃতি অর্জন করেছে।’

বাংলাদেশকে বিশ্বের দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতিগুলোর অন্যতম দেশ হিসেবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের তৈরি পোশাক রফতানিতে দ্বিতীয়, অভ্যন্তরীণ মৎস্য উৎপাদনে তৃতীয়, মিঠাপানির মৎস্য উৎপাদনে চতুর্থ, চাল উৎপাদনে চতুর্থ এবং রেমিট্যান্স অর্জনে অষ্টম বৃহত্তম অবস্থানে রয়েছে।

গত এক দশকে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাফল্য তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, গত ১০ বছরে আমাদের জিডিপি প্রবৃদ্ধি গড়ে ৭ শতাংশ থেকে গত বছরে ৮.১ শতাংশে পৌঁছেছে এবং আশা করা হচ্ছে, চলতি অর্থবছরে তা ৮.৩ শতাংশ দাঁড়াবে।

তিনি বলেন, ‘মুদ্রাস্ফীতি কমে দাঁড়িয়েছে ৫.৪ শতাংশ, মাথাপিছু আয় ২০০৬ সালের ৫৪৩ মার্কিন ডলার থেকে সাড়ে তিনগুণ বেড়ে ২০১৯ সালে প্রায় ২০০০ মার্কিন ডলার দাঁড়িয়েছে। বৈদেশিক মুদ্রার মজুদ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার, রফতানি ২০০৫-০৬ সালের চেয়ে তিনগুণ বেড়ে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে দাঁড়িয়েছে ৪০.৫৩ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।’

প্রাইস ওয়াটারহাউস কুপার্স-এর পরিসংখ্যান তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০৩০ সাল নাগাদ বাংলাদেশ হবে বিশ্বের ২৯তম বৃহত্তম অর্থনীতি। বিশ্বব্যাংকে সাম্প্রতিক প্রকাশনায় বাংলাদেশকে ‘বিশ্বের দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতির’ পাঁচটি দেশের অন্তর্ভুক্ত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এইচএসবিসি ২০১৮ সালে তাদের রিপোর্টে উল্লেখ করেছে বাংলাদেশ ২০৩০ সাল নাগাদ বিশ্বের ২৬তম বৃহত্তম অর্থনীতি এবং দ্রুত বিকাশমান তিনটি অর্থনীতির একটি। এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকের আউটলুক ২০১৯ রিপোর্টের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, বাংলাদেশ হবে এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীর অঞ্চলের দ্রুত বিকাশমান অর্থনীতি।

তিনি বলেন, “এই অর্জন সম্ভব হয়েছে বলিষ্ঠ নেতৃত্ব, সুশাসন, অব্যাহত রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা এবং জোরদার সামষ্টিক অর্থনৈতিক নীতির সুবাদে। এই সব অর্জন বাংলাদেশকে ‘সোনার বাংলায়’ রূপান্তরে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণের সাফল্য এনে দিয়েছে। যদি এই ইতিবাচক ধারা অব্যাহত থাকে, যদি আমাদের লক্ষ্য বাস্তবায়ন করতে পারি আমরা আশা করি, ২০৪১ সাল নাগাদ বাংলাদেশকে উন্নত দেশের পরিণত করা সম্ভব হবে।”

তিনি দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরদার করতে রাজনৈতিক কূটনীতির পাশাপাশি অর্থনৈতিক কূটনীতির ওপরেও গুরুত্বারোপ করেন। বাসস

ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

সর্বশেষ খবর

Archives

SatSunMonTueWedThuFri
   1234
19202122232425
262728293031 
       
      1
       
    123
18192021222324
       
      1
16171819202122
30      
     12
       
    123
       
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
2345678
30      
     12
       
    123
25262728   
       
      1
2345678
9101112131415
3031     
      1
30      
   1234
567891011
       
Surfe.be - cheap advertising