রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিওগুলোকে শহরে প্রবেশ অধিকার কতটুকু যৌক্তিক?

৯ সেপ্টেম্বার, ২০১৮ ১১:৫৩ am
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিওগুলোকে শহরে প্রবেশ অধিকার কতটুকু যৌক্তিক?

        রোহিঙ্গা ক্যাম্পে কর্মরত এনজিওগুলোকে শহরে প্রবেশ অধিকার কতটুকু যৌক্তিক?

জাহেদ হাসান, কক্সবাজার প্রতিনিধি:
কক্সবাজারে আগত রোহিঙ্গা ও তাদের সেবাদানকারী এনজিও গুলোকে নির্ধারিত এলাকায় ক্যাম্প বন্দি রাখার আকুল আবেদন জানাচ্ছি।

 

গত এক বছরের অভিজ্ঞতা নিয়ে বলছি, দেশজুড়ে মাদক তথা ইয়াবার বিস্তার ও কক্সবাজারে সড়ক দুর্ঘটনা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হচ্ছে এনজিও গুলো।

 

সুতরাং এনজিও গুলোকেও রোহিঙ্গাদের মতো ক্যাম্প করে উখিয়া টেকনাফের দিকে সুনির্দিষ্ট এলাকা নির্ধারিত করে দেওয়া হউক। এদের কোনোভাবেই কক্সবাজার শহরে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবেনা। কক্সবাজার ছোট্ট একটা শহর। দেশের ও বিদেশের লক্ষাধিক লোক এখন রোহিঙ্গা সেবার নামে কক্সবাজারে নিয়মিত অবস্থান করছে। তাদের সাথে রয়েছে লক্ষাধিক গাড়িও।

 

এনজিও গুলোর কারণে কক্সবাজার শহরের অবস্থা খুবই নাজুক হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত তাঁদের বহনকারী গাড়িগুলো শহরে ট্রাফিক জ্যামের সৃষ্টি করছে। সড়কগুলোও অধিক বোঝা বইতে গিয়ে অল্প সময়ে খানাখন্দে ভরে যাচ্ছে। সাধারণ স্থানীয় লোকজন তীব্র ভোগান্তির শিকার হচ্ছে। গত এক বছরে এনজিওর গাড়িগুলো কক্সবাজার শহরে আসা যাওয়ার পথে সর্বাধিক সড়ক দুর্ঘটনা ঘটিয়েছে। অনেকের প্রাণহানি ঘটিয়েছে। দ্রব্য মূল্য থেকে শুরু করে সবকিছুর মুল্য আকাশচুম্বি হয়ে পড়েছে।

 

এছাড়াও এনজিও গুলোর ভদ্রমুখোশ ইয়াবা পাচারে নতুন যোগ সৃষ্টি করেন। ইতিমধ্যেই যতসব নামীদামি অখ্যাত কুখ্যাত আন্তর্জাতিক দেশীয় সব ধরণের এনজিও গুলোর সাথে ইয়াবা পাচারের সংশ্লিষ্টতা পেয়েছেন প্রশাসন। এরা খুব ভিআইপি সিআইপি হওয়ায় এদের গাড়িগুলো প্রশাসন ওভাবে তল্লাশিও করেনা। এরফলে এরা ইয়াবা পাচারে পুরোদস্তুর মনোনিবেশ করেছে।

 

হোটেল মোটেল জোনে সৃষ্টি হয়েছে কৃত্রিম সংকট। সব ধরণের হোটেলে এখন এনজিও গুলোর অযাচিত থাবায় আক্রান্ত। তাদের আগ্রাসনে আবাসিক হোটেলগুলো রেইট বেড়ে গিয়েছে। তিনশো টাকার রুম এখন একহাজার টাকা দিলেও মিলছেনা। এর প্রভাব গিয়ে পড়েছে আমাদের লক্ষী পর্যটকদের উপর। এনজিও গুলোর কাছে বেশি টাকা পাওয়ায় হোটেল মালিকেরাও পর্যটকদের তেমন একটা গায়ে মাখছেন না।

 

এছাড়াও অর্থনেতিকভাবে চাপে পড়েছে স্থানীয়রাও। নিয়মিত দ্রব্য মূল্য ক্রয় বিক্রয়, মাছ শাক সব্জি ক্রয়ের উপরও তীব্র প্রভাব পড়েছে। সামাজিক ও পারিবারিক মুল্যবোধ ধ্বংসের বিষয়টি নাই বললাম।

 

আমার স্পষ্ট বক্তব্য, এনজিও গুলো এবং তাঁদের লোকজন স্টাফ অফিসারদের কোনো ভাবেই কক্সবাজার শহরে প্রবেশ করার প্রয়োজনীয়তা দেখতে পাচ্ছিনা। উখিয়া টেকনাফে সব কিছু রয়েছে। সেখানেই তাদের কাজকর্ম। সেখানেই তারা তাদের চাহিদা মেটাতে পারে। ক্যাম্প ছেড়ে বা ক্যাম্প এলাকা ত্যাগ করে কক্সবাজার শহরে ঢুকতে দিলেই তারা আমাদের জন্য বড় ধরণের সমস্যার কারণ হয়ে দাড়াচ্ছে।

 

মাননীয় জেলা প্রশাসক মহোদয় বিষয়টি একটু ভেবে দেখার অনুরোধ রইলো।

হঠাৎ করেই মুখে ঘোমটা টেনে ঘরে প্রবেশ করলেন ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা! এরপর…

হঠাৎ করেই মুখে ঘোমটা টেনে ঘরে প্রবেশ করলেন ৬০ বছর বয়সী এক বৃদ্ধা! এরপর…

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক: মোবাইলে দীর্ঘ এক মাস ধরে চলে তাদের প্রেম। কিন্তু, প্রেমিকাকে একনজর দেখার জন্য প্রেমিকের আর তর সইছে না। অবশেষে একদিন দুরু দুরু বিস্তারিত →

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ড, ৬ জন নিহত!

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অগ্নিকাণ্ড, ৬ জন নিহত!

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক: মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা আশ্রয়কেন্দ্রে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। এতে ৬ রোহিঙ্গা মুসলিম আগুনে পুড়ে মারা গেছে।   আজ (১৯ অক্টোবর) মধ্যরাতে ভোরে এই বিস্তারিত →

রোহিঙ্গা রহিমুল্লার ইয়াবাসহ বহুমুখী বাণিজ্য

রোহিঙ্গা রহিমুল্লার ইয়াবাসহ বহুমুখী বাণিজ্য

জাহেদ হাসান কক্সবাজার: কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প  পালংখালী শফিউল্লাহ কাটা ও কক্সবাজার জেলা কেন্দ্রিক ইয়াবার রমরমা ব্যবসা চললেও দেখার কেউ নেই।ফলে নতুন রোহিঙ্গা রহিমুল্লাহর নেতৃত্বে বিস্তারিত →

মির্জাপুরে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালন

মির্জাপুরে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস পালন

মোঃ সানোয়ার হোসেন, স্টাফ রিপোর্টারঃ টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস-২০১৮ পালন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় সাংবাদিক সংস্থা মির্জাপুর শাখার আয়োজনে শুক্রবার বিকেলে র‌্যালী বিস্তারিত →

কক্সবাজারে রোহীঙ্গা ক্যাম্পে স্থানীয়দের ৭০ শতাংশ চাকরীতে নিয়োগের সরকারী নির্দেশ অমান্য করছে কিছু কিছু এনজিও

কক্সবাজারে রোহীঙ্গা ক্যাম্পে স্থানীয়দের ৭০ শতাংশ চাকরীতে নিয়োগের সরকারী নির্দেশ অমান্য করছে কিছু কিছু এনজিও

জাহেদ হাসান, কক্সবাজার: কক্সবাজার জেলার রোহীঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা উখিয়া টেকনাফ, এখানে প্রায় ১০ লক্ষ রোহীঙ্গা দাপটের সাথে বসবাস করছে স্থানীয়দের জীবন ধারন এখানে খুব কঠিন বিস্তারিত →

সর্বশেষ খবর

Archives

SatSunMonTueWedThuFri
     12
17181920212223
24252627282930
       
    123
18192021222324
       
      1
16171819202122
30      
     12
       
    123
       
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
2345678
30      
     12
       
    123
25262728   
       
      1
2345678
9101112131415
3031     
      1
30      
   1234
567891011
       
Surfe.be - cheap advertising