চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের খাল খননের ১২৫৬ কোটি ১৬ লাখ টাকার সংশোধিত প্রকল্প

৭ নভেম্বার, ২০১৮ ১২:৪০ pm
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের খাল খননের ১২৫৬ কোটি ১৬ লাখ টাকার সংশোধিত প্রকল্প

            চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের খাল খননের ১২৫৬ কোটি ১৬ লাখ টাকার সংশোধিত প্রকল্প

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক:
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের (চসিক) খাল খননের ১২৫৬ কোটি ১৬ লাখ টাকার সংশোধিত প্রকল্প আজ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় উঠছে। (চসিক) এর ৯৪২ কোটি ১২ লাখ টাকা জিওবি অর্থায়ন এবং ৩১৪ কোটি ৪ লাখ টাকা দেবে। সংশোধিত প্রকল্প বাস্তবায়নের সময়সীমা ২০২০ সাল পর্যন্ত নির্ধারণ করা হয়। চার বছর আগে একনেকে চুড়ান্ত অনুমোদন পায় প্রকল্পটি। কিন্তু প্রয়োজনীয় অর্থ ছাড় না হওয়া এবং ভুমি অধিগ্রহণসহ নানা জটিলতায় কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি।

 

প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নগরীর বিস্তীর্ণ এলাকা জলাবদ্ধতামুক্ত হবে এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের ফলে জনগণের যাতায়াতে সুবিধা বৃদ্ধি ও ব্যবসা-বাণিজ্যের আরও প্রসার ঘটবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

 

এদিকে প্রকল্পে সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নের পরিমাণ কমানোর চেষ্টার কথা জানায় প্রধান নির্বাহী মো. সামসুদ্দোহা। চসিকের প্রকৌশল বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, নতুন খালটি নগরীর বহদ্দারহাট বারইপাড়াস্থ চাক্তাই খাল থেকে শুরু করে শাহ্ আমানত রোড, নুর নগর হাউজিং সোসাইটির মাইজপাড়া দিয়ে পূর্ব বাকলিয়া হয়ে বলির হাটের পাশে কর্ণফুলী নদীতে গিয়ে পড়বে। খালটির দৈর্ঘ্য আনুমানিক ২ দশমিক ৯ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ৬৫ ফুট। খালের উভয় পাশে ২০ ফুট করে রাস্তা নির্মাণ করা হবে।

 

এদিকে প্রকল্প সংশোধনের বিষয়ে বলা হয়েছে, ২০১৪ সালের ২৪ জুন প্রকল্পটি একনেকে অনুমোদন পায়। তখন প্রকল্পটির ব্যয় ধরা হয়েছিল ২৮৯ কোটি ৪৪ লক্ষ ৪ হাজার টাকা। ৩২৬ কোটি ৮৪ লাখ ৮১ হাজার টাকায় ২০১৫ সালের ১৩ আগস্ট প্রকল্পটি প্রশাসনিক অনুমোদন পায়। ওই সময় প্রকল্পের মেয়াদ ধরা হয় ২০১৪ সালের ১ জুলাই থেকে ২০১৭ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের মধ্যে ভ‚মি অধিগ্রহণ না হওয়ায় প্রকল্পের কাজ শুরু করা যায়নি। ২০১৪ সালে অনুমোদিত প্রকল্পের ভ‚মির অধিগ্রহণের প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছিল ২২৪ কোটি ১৬ লাখ ৫৩ হাজার টাকা। কিন্তু প্রস্তাবিত খালটি সিটি কর্পোরেশনের বেশ কয়েকটি সড়ক ও নর্দমা অতিক্রম করে যাবে বিধায় ওই অংশের ৫৬ দশমিক ২৮ ডেসিমেল ভূমি অধিগ্রহণের পরিমাণ হ্রাস পাবে। এক্ষেত্রে ডিজিটাল সার্ভে অনুসারে জমি অধিগ্রহণের পরিমাণ ২ হাজার ৫১৬ দশমিক ৬২ ডেসিমেল। ইতোমধ্যে মৌজা রেট বার বার বৃদ্ধি এবং সরকারি ভূমি অধিগ্রহণ নীতিমালায় মূল্য দেড়গুণ থেকে তিনগুণ বেড়েছে। ফলে জেলা প্রশাসক কর্তৃক ভূমির প্রক্কলিত মূল্য বৃদ্ধি করে ১ হাজার ১০৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়াও অনুমোদিত প্রকল্পে ৬ হাজার ৯৫০ মিটার (৭৭টি আধা-পাকা ও ১১টি পাকা ভবন) ভবন ক্ষতিপূরণ বাবদ ৮ কোটি ৯৪ লাখ ৭৮ হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়। বর্তমানে যা বৃদ্ধি পেয়ে ১৫ কোটি ৯ লাখ ৯৬ হাজার টাকা হয়েছে ( সংশোধিত ৭ হাজার ১৫৩ বর্গমিটারে ৫২টি আধা-পাকা ও ৩৫টি পাকা ভবন রয়েছে)। একটি চুইস গেট নির্মাণের জন্য ৫ কোটি টাকা নির্ধারিত ছিল। বর্তমানে সিডিউল রেট বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে প্রাক্কলিত ব্যয় ১৬ কোটি টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

 

এদিকে ২০১৭ সালের জানুয়ারিতেও প্রকল্পটি সংশোধন করে মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছিল চসিক। ওই সময় প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ৬১৫ কোটি ২৬ লাখ টাকা। কিন্তু পরবর্তীতে প্ল্যানিং কমিশনের বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী প্রকল্পটি পুনরায় সংশোধন করে ৩৭৬ কোটি ১৩ লাখ টাকা করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। সর্বশেষ একই বছরের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত পরিকল্পনা কমিশনের প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির সভায় শর্ত দিয়ে প্রকল্প অনুমোদনের সুপারিশ করা হয়। এর প্রেক্ষিতে ১ হাজার ২২৪ কোটি ১১ লাখ টাকায় আরডিপিপি তৈরি করা হয়। যা গত এপ্রিল মাসে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করা হয়।

 

পরিকল্পনা কমিশনের প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটি সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত পরিকল্পনা কমিশনের বৈঠকে চসিককে ৩টি শর্ত দেয়া হয়। শর্তগুলো হচ্ছে, জলাবদ্ধতা নিরসনে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) গৃহীত ৫১৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার প্রকল্পের সাথে সমন্বয় করা, সিডিএর প্রকল্পের সঙ্গে দ্বৈততা পরিহার করে বাস্তবায়নের পরবর্তী কার্যক্রম গ্রহণ। ভুমির মুল্য নির্ধারণের বিষয়ে সরকারের বিদ্যমান বিধি অনুসারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ। এছাড়া এতদিন ভুমি অধিগ্রহণে দীর্ঘ সময় অতিবাহিত হওয়ার কারণও আরডিপিপিতে উল্লেখ করার শর্ত দেয়া হয়। শর্তগুলো পুরণ করেই আরডিপিপি তৈরি করে প্রেরণ করে চসিক। চলতি বছরের ১৮ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগে ১ হাজার ২২৪ কোটি ১১ লাখ টাকায় তৈরিকৃত আরডিপিপির উপর বৈঠক হয়। বৈঠকে ভবিষ্যতে ভুমির মূল্য বেড়ে গেলে প্রকল্প বাস্তবায়নে যাতে কোনো জটিলতা দেখা না দেয় তা মাথায় রেখেই ৩ শতাংশ ব্যয় বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত হয়।

 

এবিষয়ে চসিকের প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদ জানান, ভুমি অধিগ্রহণ ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হয়। আগামীকাল (আজ) সংশোধিত প্রকল্পটি একনেকে উঠছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে নতুন খাল খনন হলে পানির ধারণ ক্ষমতা বাড়বে। এছাড়া শুরু থেকেই খালটি পরিচর্যা করা গেলে তার সুফল নগরবাসী পাবে। খালটির দুই পাশে রাস্তাও নির্মাণ করা হবে। এখন প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে নগরীর বিস্তীর্ণ এলাকার জলাবদ্ধতা নিরসন হবে এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের ফলে ব্যবসা বাণিজ্যের প্রসার ঘটবে।

 

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী মো. সামসুদ্দোহা জানান, খালটি খননের কথা প্রথমে উল্লেখ করা হয়েছে ১৯৯৫ সালের সিডিএ’র একটি মাস্টার প্লানে। সে মাস্টার প্লানটির মেয়াদ ছিল ২০১৫ সাল পর্যন্ত। কিন্তু সিডিএ তা বাস্তবায়নের কোনো উদ্যোগ নেয়নি। পরবর্তীতে ২০১২ সালের দিকে নগরবাসীর দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে সিটি কর্পোরেশন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়। এরপর ২০১৪ সালে একনেকে অনুমোদনও হয়। কিন্তু প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মূল কাজ ছিল ভূমি অধিগ্রহণ। মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড়ের জটিলতার কারণে জেলা প্রশাসন ভূমি অধিগ্রহণের কাজটি করতে পারেনি। কেননা জেলা প্রশাসনের ভূমি অধিগ্রহণের পূর্বশর্ত হচ্ছে ক্ষতিপূরণের টাকা পুরোটা জমা দিতে হবে। পরবর্তীতে সরকারি নীতিমালার কারণে ক্ষতিপূরণের পরিমাণ বেড়ে হয় তিনগুণ। যার কারণেই মূলত প্রকল্পটির ব্যয় অনেক বেড়ে গেছে। তিনি আরো বলেন, প্রকল্পটি যখন প্রথম অনুমোদন হয়, তখন মোট ব্যয়ের ২৫ শতাংশ সিটি কর্পোরেশন দেয়ার কথা ছিল। কিন্তু বর্তমানে ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় সিটি কর্পোরেশনকে শর্ত অনুসারে দিতে হবে প্রায় ৩১৫ কোটি টাকা। যা সিটি কর্পোরেশনের পক্ষে বহন করা কঠিন হয়ে পড়বে। তাই আমরা চেষ্টা করবো, সিটি কর্পোরেশনের অর্থায়নের পরিমাণ যাতে কমানো হয়।

‘দেশের ৪ কোটি মানুষের কর দেওয়া উচিত’

‘দেশের ৪ কোটি মানুষের কর দেওয়া উচিত’

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক: দেশের ২২ শতাংশ মানুষ অর্থাৎ ৩ কোটি মানুষ এখনো দরিদ্র, এদের টেনে তোলাই চেলেঞ্জ বলে মন্তব্য করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিস্তারিত →

প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের দ্বারা অব্যাহত রাখতে চট্টগ্রাম ১৫ আসনে এম পি নদভীর বিকল্প নেই

প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়নের দ্বারা অব্যাহত রাখতে চট্টগ্রাম ১৫ আসনে এম পি নদভীর বিকল্প নেই

ইসলামুল হক আজাদ: সাতকানিয়া-লোহাগাড়ায় ২ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন করেছেন ড.প্রফেসর আবু রেজা মুহাম্মদ নেজাম উদ্দীন নদভী। সাতকানিয়া -লোহাগাড়া আগে রাজত্ব করে ছিলো জামাত বি বিস্তারিত →

কালিয়াকৈরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড প্রায় ত্রিশলক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

কালিয়াকৈরে ভয়াবহ অগ্নিকান্ড প্রায় ত্রিশলক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি

দেলোয়ার হোসেন, কালিয়াকৈর (গাজীপুর)প্রতিনিধি: গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। গতকাল বৃহঃবার বিকেলে অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে। কালিয়াকৈর বাজার কসিমউদ্দিন রোডে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট বিস্তারিত →

‘এবারের নির্বাচন আয়োজন করার জন্য ৭০০ কোটি টাকা প্রয়োজন হবে’

‘এবারের নির্বাচন আয়োজন করার জন্য ৭০০ কোটি টাকা প্রয়োজন হবে’

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক: নির্বাচন কমিশন (ইসি) একাদশ জাতীয় নির্বাচন আয়োজনের জন্য বর্তমানে প্রচণ্ড ব্যস্ত সময় পার করছে। এবারের নির্বাচন আয়োজন করার জন্য ৭০০ কোটি টাকা বিস্তারিত →

ঢাকা থেকে কুমিল্লার লাকসাম হয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত এ বুলেট ট্রেন চলাচলে কাজ শুরু!

ঢাকা থেকে কুমিল্লার লাকসাম হয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত এ বুলেট ট্রেন চলাচলে কাজ শুরু!

বর্তমান প্রতিদিন ডেস্ক: বুলেট ট্রেন চলাচলে উপযোগি ঢাকা-চট্টগ্রাম রেলপথ নির্মাণকাজ শিগগির শুরু হচ্ছে । ঢাকা থেকে কুমিল্লার লাকসাম হয়ে চট্টগ্রাম পর্যন্ত এ রেলপথ নির্মাণ করা বিস্তারিত →

সর্বশেষ খবর

Archives

SatSunMonTueWedThuFri
     12
10111213141516
17181920212223
24252627282930
       
    123
18192021222324
       
      1
16171819202122
30      
     12
       
    123
       
14151617181920
21222324252627
28293031   
       
      1
2345678
30      
     12
       
    123
25262728   
       
      1
2345678
9101112131415
3031     
      1
30      
   1234
567891011
       
Surfe.be - cheap advertising